মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
পাতা

বার্তা

রাজনগর উপজেলার ওয়েব পোর্টালে সকলকে স্বাগতম।হাজার বছরের ঐতিহ্য মন্ডিত রাজা সুবিদ নারায়ন এর ঐশর্য্য ও শৌর্য্যের স্মৃতিবিজড়িত, হাওর বেষ্টিত, চা-বাগান ঘেরা রাজনগর মৌলভীবাজার শহর থেকে ১০ কিঃমিঃ উত্তর পূর্বে অবস্থিত সিলেট জেলার সীমান্ত ঘেষা একটি উপজেলা।উপজেলার উত্তর-পশ্চিমে  প্রমত্তা কুশিয়ারা এবং দক্ষিন-পশ্চিমে মনু ও ধালাই বিধৌত এক উর্বর ভূমি। মাছ ও খাদ্যে উদ্বৃত্ত এই উপজেলাটি ভূ-কাঠামোতে যেমন বৈচিত্রমন্ডিত তেমনি নৃতাত্মিক বৈশিষ্ট্যে সমৃদ্ধ।বর্ষার স্নিগ্ধরূপ,চা-বাগানের দৃষ্টিনন্দন সবুজ এবং শীতের অতিথি পাখির কল-কাকলি মুখরতা এলাকাটিকে আলাদা ব্যঞ্জনা দিয়েছে।নগর প্রান্ত থেকে ৫ কিঃ মিঃ উত্তরে  ঐতিহ্যবাহী সুবৃহৎ সাগর দিঘী যা অন্য নামে কমলার দিঘী নামে পরিচিত। মৌলভীবাজার থেকে রাজনগর হয়ে দু’টি মহাসড়ক রাজনগরকে সরাসরি সিলেটের সাথে যুক্ত করেছে। উপজেলায় দু’টি ডিগ্রী কলেজ,২২টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ৫টি মাদ্রাসা,১৩৫টি প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে। উপজেলার প্রতি বর্গ কিলোমিটারে জনবসতি ৬৩৫ জন প্রায়। প্রাচীন ঐতিহ্যেমন্ডিত এই উপজেলার এক কৃতি পুরুষ জনার্ধন কর্মকার  কালো ঝমঝম নামে যে কামানটি নির্মান করেছিলেন তা কালের বিষ্ময়,যা বর্তমানে জাতীয় যাদুঘরে সংরক্ষিত আছে। বিপ্লবী লীলা নাগের বাড়ীও এই রাজরগরের পাঁচগাঁও নামক স্থানে। উপমহাদেশের সর্ব বৃহৎ দূর্গাপূঁজা উপজেলার পাঁচগাঁও নামক স্থানে অনুষ্ঠিত হয় যেখানে দেশ ও বিদেশের ভক্ত-পূজাঁরী অংশগ্রহন করেন। কথিত আছে পাঁচগাঁও দূর্গা মন্দিরে দেবী জাগ্রত রুপে বিরাজমান। শীতল পাটি বাংলার একটি চিরায়ত ঐতিহ্যের অংশ। রাজনগর উপজেলার ফতেপুর, পাঁচগাঁও এবং উত্তরভাগ অঞ্চলে বেশ কিছু সংখ্যক শীতল পাটির শিল্পী রয়েছেন যাদের বানানো শীতল পাটি দেশে এবং দেশের বাহিরে বেশ কদর রয়েছে। রাজনগর তার প্রাকৃতিক বৈভব এবং অপরূপ রূপলীলার স্পর্শ পেতে সকলকে আন্তরিক আমন্ত্রন।